Home / আজকের বিজ্ঞাপন / বইমেলায় ফারজানা মিতুর ৬ উপন্যাস

বইমেলায় ফারজানা মিতুর ৬ উপন্যাস

 Farzana-Mitu-1বইমেলায় ফারজানা মিতুর ৬ উপন্যাস।

বইমেলায় দিব্য প্রকাশ-এর স্টল নং ৫৪৫-৫৪৬-৫৪৭-৫৪৮

প্রকাশনা সংস্থা : দিব্য প্রকাশ
বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০।

ফারজানা মিতু। লেখালেখিই যার একমাত্র সঙ্গী। এবারের বইমেলায় দিব্যপ্রকাশ প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হতে যাচ্ছে ফারজানা মিতুর মোট ৬টি উপন্যাস। বইগুলো হলো : আমার অদৃষ্টে তুমি, ভালোবেসে রুমাল দিতে নেই, যে আঁধারে তুমি নেই, কেটেছে একেলা বিরহের বেলা, পথে যেতে যদি আসি কাছাকাছি এবং তোমাতে করিবো বাস।
বইগুলো মেলার পাওয়া যাবে দিব্য প্রকাশের স্টলে। যোগাযোগ : দিব্য প্রকাশ, বাংলাবাজার, ঢাকা-১১০০।

 

Farzana-Mitu-2আমার অদৃষ্টে তুমি
মূল্য:  ১৫০ টাকা

নূপুর আর নক্ষত্র। যারা প্রচন্ড ভালোবাসায় একজন আরেকজনকে কাছে ধরে রেখেছে। দূরত্ব আর বিচ্ছেদ যাদেরকে আলাদা করতে পারেনি। যারা ভালোবেসে কষ্টের সমুদ্রে ভাসতে চেয়েছে। নূপুর আর নক্ষত্রের লেখা সব চিঠি এই বইয়ের প্রাণ যা কখনো কখনো ওদের সাথে কান্না ঝরাবে সবার চোখেও। ওরা বুঝিয়ে দেবে ভালোবাসায় স্বার্থপরতাও থাকতে হয়, ভালোবাসায় বেহিসেবিও হতে হয়। ভালোবাসার মানুষটিকে ধরে রাখার জন্য তাই সব পারতে হয়, সব করতে হয়।

ভালোবেসে রুমাল দিতে নেই
মূল্য: ১২০ টাকা
কথায় বলে কেউ যখন প্রেমে পড়ে তখন তার ভেতরের আসল মানুষটা তার নকল খোলস ছেড়ে বের হয়ে আসে। তাই হয়তো কঠিন হৃদয়ের মানুষেরাও জেনে হোক আর না জেনে হোক প্রেমে পড়ে। আর যখন প্রেমে পড়ে তখন ভুলে যায় নিজের অবস্থান, নিজের নিজের পরিচয়। অনন্ত, যার হাত মানুষের রক্তে লাল হয়, যার অস্ত্রের সামনে মানুষ দাঁড়াতে ভয় পায় আর সেই অনন্তই কিনা একদিন প্রেমে  পড়লো নীলা নামের এক মেয়ের। তার ভেতরে ঘটে গেল বিশাল বিস্ফোরণ। ভুলে গেল সে কোন সমাজের মানুষ, সেখানে প্রেম ভালোবাসার কোন জায়গা নেই। তাই বলে কী প্রেম থেমে থাকবে?  অনন্তর প্রেমও থেমে থাকেনি, । ভালোবেসে অনন্ত নীলার হাতে তুলে দিয়েছিল রুমাল। ভালোবাসার রঙে লেখা অসংখ্য রুমাল।

যে আঁধারে তুমি নেই
মূল্য:  ১৫০ টাকা

কিছু মানুষ থাকে যারা কাছের মানুষদের জন্য আজীবন নিজেকে নিঃশেষ করে যায়। তাকিয়ে দেখে না দিন শেষে কী পেল আর যখন দেখে তখন আর পাশে এসে দাড়ানোর মতো কেউ থাকে না। প্রচন্ড ভালোবাসায় হাত ধরার কেউ থাকে না, কেউ থাকে না বলার আর কিছু না শুধু তোমাকেই চাই। জীবিনে ভালোবাসা আসে আর চলেও যায়। সব ভালোবাসা আকাশের মতো উদার বিশাল হয় না, বিশ্বাসের ভিত অবিচল তাই হয় না। শাহেদ নামের মানুষটি চেয়েছিল নীরা নামের মেয়েটিকে নিয়ে অনেক দূরে কোথাও গিয়ে বাঁচতে। যেখানে নীরার অন্ধকার অতীত গিয়ে পৌছাবে না কিন্তু নীরা চেয়েছিল অয়নের মাঝে  আজীবন নিজেকে খুঁজে পেতে। ভালোবাসার এমনই হয়তো নিয়ম। যে যাকে চায় ভুল করে চায়। নীরা ভুলে যায় বিশ্বাসের দেয়ালও অবিশ্বাসের পানিতে ভেজানো থাকে।

Farzana-Mitu3কেটেছে একেলা বিরহের বেলা
মূল্য:  ১৫০ টাকা
একটি পরিবার। কাছাকাছি পাশাপাশি আনন্দ কষ্ট ভাগ করে নেবার অঙ্গীকার। তারপরও মাঝে মাঝে ঝড় আসে। এলোমেলো করে যায় সবকিছু। তেমনই কিছু এলোমেলো হয়ে যাওয়া মানুষের কাহিনী নিয়েই আবর্তিত হয়েছে “কেটেছে একেলা বিরহের বেলা“ উপন্যাসটি। অধরা, অর্পিতা আর অরণ্যকে নিয়ে বেড়ে উঠেছে এই উপন্যাসের কাহিনী। ওদের ত্রিমুখী সম্পর্ক যা কখনো কষ্ট দেবে, কখনো নির্বাক করবে। কারো আত্মত্যাগ, কারো স্বার্থপরতা, কারো আত্মকেন্দ্রিকতা সবই ফুঁটে উঠেছে এই উপন্যাসে। সেখানে দেখা যাবে কেমন করে একটি পরিবার এক হয়ে যায় আবার একই সাথে কীভাবে বাজে ভাঙ্গনের সুর।

পথে যেতে যদি আসি কাছাকাছি
মূল্য: ২০০ টাকা

এই উপন্যাসের মাঝে ছড়িয়ে আছে ধোঁকা, অপমান আর অবহেলার নিদারুণ অভিমান। রায়া অনেক ভালোবেসে জড়িয়ে পড়েছিল রাতুল নামের এক ছেলের সাথে। যার সাথে কথা ছিল ভালোবাসা দিবসে প্রথম দেখা হবার। রায়া আর রাতুল জড়িয়ে গিয়েছিল অমোঘ এক আবেগে। কিন্তু ভালোবাসার পথ এতো মসৃণ হয় না তাই অন্ধকার এসে ঢেকে দিয়েছিল আর সেই অন্ধকার সরাতে মাঝে এসে দাড়িয়েছিল আরিয়ান। যার সর্ব সত্তায় কখন মিশে গেছে রায়া নামের মেয়েটি।

তোমাতে করিবো  বাস
মূল্য: ২০০ টাকা

কিছু উচ্ছ্বল ছেলেমেয়ের মাঝে কিছু টানাপোড়েন, কিছু হাহাকার, কিছু কষ্ট আর অদম্য প্রেম নিয়ে লেখা উপন্যাস এটি। যেখানে বন্ধুত্ব আছে, প্রেম আছে, আর আছে নিদারুণ না পাওয়ার আকুতি। অক্ষর, সেঁজুতি আর আলিফকে ঘিরে যে সম্পর্কের সূচনা সেটার শেষ কোথায়? এই প্রশ্নের জবাব ওরা যেমন জানে না তেমনি জানে না ওদের কাছের মানুষেরাও।