Home / সবিশেষ / কবি মাসরুর আরেফিনের সঙ্গে এক সন্ধ্যায় কবি-শিল্পীদের আড্ডা! ইয়াহিয়া মির্জা

কবি মাসরুর আরেফিনের সঙ্গে এক সন্ধ্যায় কবি-শিল্পীদের আড্ডা! ইয়াহিয়া মির্জা

কবি মাসরুর আরেফিনের সঙ্গে এক সন্ধ্যায় কবি-শিল্পীদের আড্ডা!
ইয়াহিয়া মির্জা

এবারের বর্ষা বর্ষণমুখর। শনিবার বিকেলও ছিলো তেমন একটি দিন। সন্ধ্যেবেলায় রাজধানীর বিশ্ব সাহিত্যকেন্দ্রের বাতিঘরে বসবে এক কবিতার আড্ডা। অনুষ্ঠানের শিরোনাম- ‘ঈশ্বরদী, মেয়র ও মিউলের গল্প/ কবি মাসরুর আরেফিনের সঙ্গে এক সন্ধ্যা’।
সাহিত্যপ্রেমীরা তাই বৃষ্টি উপেক্ষা করেই হাজির হয়েছেন এ আয়োজনে। তাদের উপস্থিতিতে প্রাণবন্ত এক আলোচনা হলো। শুধু আলোচনা বললে ভুল হয়ে যাবে। হয়েছে কবির বই নিয়ে আলোচনা। উঠে এসেছে কবিতা রচনার নেপথ্যের কথা। বই থেকে পাঠ। প্রশ্নোত্তর পর্ব। বুক সাইনিং ইত্যাদি ইত্যাদি।
ফেসবুকের কল্যাণে পুরো অনুষ্ঠান লাইভ সম্প্রচার হয়েছে। এর নেপথ্যে ছিলেন সাহিত্যিক-প্রকাশক রবীন আহসান। তার বদান্যতায় অনেকেই অনুষ্ঠানটি ঘরে বসে উপভোগ করতে পেরেছেন। যারা বৃষ্টির কারণে যেতে পারেননি, যারা ভেবেছিলেন অনুষ্ঠানটি মিস করতে হবে, তাদের ধন্যবাদ অবশ্যই পাবেন রবীন। ফেসবুক যে কতোভাবে আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে, এ লাইভ তার প্রমাণ।

 

কবি মাসরুর আরেফিন সন্ধ্যায় বন্ধু লেখকদের আড্ডা

যাই হোক, মুল অনুষ্ঠানের কথায় আসি। মাসরুর আরেফিনের প্রথম বই-ই আসলে কাব্যগ্রন্থ ‘ঈশ্বরদী, মেয়র ও মিউলের গল্প’। কিন্তু ‘কবি’ মাসরুর আরেফিনের চেয়ে সাহিত্যমহলে তিনি কথাসাহিত্যিক, ক্ল্যাসিক সাহিত্যের অনুবাদক হিসেবে বেশি পরিচিত। তবে কবি হিসেবেও যে তিনি অনেক গুরুত্বপূর্ণ আমাদের সাহিত্যের জন্য, তা গতকালের আলোচনা থেকে আবারো আঁচ করা গেছে। অনেকটা নির্জনতার আড়াল থেকে কবি যে পাঠকমহলে অন্যরকম এক আয়োজনের মাধ্যমে সামনে এসেছেন তাতে আমাদের সাহিত্য উপকৃত হবে। এজন্য কবি মাসরুর আরেফিনকে অভিনন্দন। ধন্যবাদ দিবো ‘দ’ প্রকাশনা ও কবি ব্রাত্য রাইসুকেও। কেননা তারই সক্রিয়তায় এমন একটি সুন্দর আয়োজন সম্ভব হতে পেরেছে।

কবি মাসরুর আরেফিন সন্ধ্যায় ‘ঈশ্বরদী, মেয়র ও মিউলের গল্প’ কবিতা নিয়ে আলোচনা

 

ইয়াহিয়া মির্জা । লেখক এক সময়ের প্রখ্যাত সাংবাদিক বর্তমানে ব্যাংকার