Home / সবিশেষ / ১৪ মার্চ জাবি-এর বইমেলায় ‘শ্রাবণ বইগাড়ি’তে থাকবেন লেখক মার্জিয়া লিপি

১৪ মার্চ জাবি-এর বইমেলায় ‘শ্রাবণ বইগাড়ি’তে থাকবেন লেখক মার্জিয়া লিপি

১৪ মার্চ জাবি-এর বইমেলায় ‘শ্রাবণ বইগাড়ি’তে থাকবেন লেখক মার্জিয়া লিপি

আগামী ১৪ মার্চ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগ আয়োজিত মুক্তিযুদ্ধের বইমেলায় শ্রাবণ বইগাড়ি থাকবে মুক্তিযুদ্ধের নির্বাচিত বই নিয়ে । এই বইমেলায় গবেষক লেখক মার্জিয়া লিপি তাঁর মুক্তিযুদ্ধের ৭১ মা’কে নিয়ে রচিত ‘একাত্তর মুক্তিযোদ্ধার মা’ থাকবেন ‘শ্রাবণ বইগাড়ি’তে! পাঠকের সাথে সরাসরি কথা বলবেন বই নিয়ে।

একাত্তর মুক্তিযোদ্ধার মা – লেখার প্রসঙ্গকথা

২০১০ সালে প্রথম বই প্রকাশের পর আমার ভেতরে স্বপ্ন তৈরি হয় – আমাদের সবচেয়ে বড় অহংকার, গৌরব গাঁথা মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কিছু লেখার। সেবছর বিজয় দিবস সংখ্যা- কালের কণ্ঠের ‘জয়ীতা’ পাতায় এবং বাংলাদেশ প্রতিদিন এ প্রকাশিত হয় আমার লেখা কর্ণেল তাহের এর মা-আশরাফুন্নিসা এবং সেক্টর একের কমাণ্ডার রফিকুল ইসলামের মা রহিমা বেগমকে নিয়ে -সেই মায়েদের গল্প শুনি । বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রামের ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন অগণিত গনযোদ্ধা এবং তাঁদের মা জননীদের গৌরব গাঁথা। ইতিহাসের আখ্যান হয়ে রয়েছে অসংখ্য মায়ের সন্তান হারানোর হাহাকার। যাঁরা আপনজন হারিয়েছেন, সন্তানকে বিসর্জন দিয়েছেন দেশের স্বাধীনতার জন্যে তাঁদের দুঃখ-কষ্ট-শূন্যতা-হাহাকার-বেদনার কথা জড়িয়ে রয়েছে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসের পরতে পরতে। তাঁদের ধূসর শূণ্যতা যেন মিশে আছে বাংলাদেশের পতাকার সবুজ জমিনে রক্ত রঙের সূর্যের মাঝে সোনালী হরফে ।

‘মা’ এবং ‘মাতৃভূমি’ সমার্থক। পৃথিবীর সব যুদ্ধের মতো আমাদের এই ৫৬০০০ বর্গমাইলের ভূ-খ-ে জননীরূপী শৃঙ্খলিত পরাধীন জন্মভূমিকে মুক্ত করার লক্ষ্যে জীবনবাজি রেখে একাত্তরে মহান মুক্তির সংগ্রাম- জনযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন অগণিত গনযোদ্ধারা। সাধারণ – অতিসাধারণ ‘মা জননী’ একাত্তরের সে আগুনঝরা দিনে ‘জননীসাহসিকা’ হয়ে সন্তানকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের আদেশ দিয়েছেন, অনুপ্রেরণা দিয়েছেন।

’৭১ শুধু সংখ্যাই নয়। হাজার হাজার মানুষের রক্তাক্ত স্মৃতি। রক্তমাখা সেই স্মৃতি যেনো সামনে এসে দাঁড়ায় – আমরা এ প্রজন্ম শিহরিত হয়ে অনুভবে এসব ত্যাগের খেরোখাতায় নিজেকে নিয়ে যাই। একাত্তর মুক্তিযোদ্ধার মা এ আমি ১৯৭১ এ মাতৃভূমি, মা এবং তাঁদের সূর্যসন্তান-মুক্তিযোদ্ধাদের ইতিহাস বিবৃত করেছি- ইতিহাসেরই প্রয়োজনে। একাত্তরকে আমি দেখিনি, আমার জন্ম স্বাধীন বাংলাদেশে তবু এই নয় বছরে (২০১০ – ২০১৮) অসংখ্যদিন আমি চেতনার স্বপ্নডানায় একাত্তরে পরিভ্রমণ করেছি। তথ্য সংগ্রহের জন্য ষোল পৃষ্ঠার প্রশ্নোত্তরে মুক্তিযোদ্ধার মা এবং তাদের সূর্যসন্তানদের যুদ্ধদিনের শুনে একদিকে যেমন গৌরবান্বিত হয়েছি পাশাপাশি আমার ¯œায়ু আর হৃদয় বেদনায় ভারাক্রান্ত হয়েছে। মনে হয়েছে আমি যেনো তাঁদের সঙ্গে একাত্তরের সেদিনগুলোতে বসবাস করছি।

আমি আমার ক্ষুদ্র সামর্থ অনুযায়ী তাঁদের কথা প্রকাশ করেছি। দীর্ঘ ৯ বছর ধরে সারাদেশের এরকম মায়েদের আর মুক্তিযোদ্ধাদের যুদ্ধদিনের সংগ্রাম, স্মৃতিকথা, আত্মত্যাগের ইতিহাস নিয়ে চেষ্টা করছি – একাত্তর মুক্তিযোদ্ধার মা গ্রন্থাকারে প্রকাশের জন্যে। অসমাপ্ত রয়ে গেছে অনেকখানি কাজ, অধরা রয়ে গেছে প্রায় সবটুকুই। আমার প্রত্যাশা থাকবে বর্তমান প্রজন্মের গবেষকরা, সমগ্র দেশে মুক্তিযোদ্ধার মা এবং তাঁদের বীর সন্তানদের অপ্রকাশিত কীর্তি প্রকাশের উদ্যোগ নিবেন। একাত্তর মুক্তিযোদ্ধার মা প্রকাশিত হয়েছে একাত্তরের প্রতীক ৭১ জন মুক্তিযোদ্ধার মায়ের বিচ্ছিন্ন স্মৃতিকথা, দেশের জন্য আত্মত্যাগ, মাতৃত্বের অনুভব, মুক্তিযোদ্ধাদের অহংকারের ইতিহাস, গৌরব গাঁথা – যা বহন করবো আমরা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে – চেতনার শিখা অর্নিবাণে।

–সূচি –একাত্তর মুক্তিয়োদ্ধার মা

তমিজা খাতুন
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, মুক্তিযোদ্ধা
আবদুল হাই এবং মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবদুল হক
পৃষ্ঠা : ৩-১৪

বেগম আশরাফুন্নিসা
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : কর্নেল আবু তাহের, সেক্টর কমান্ডার-১১, বীরউত্তম, আবু ইউসুফ বীরবিক্রম
মো. ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল-বীরপ্রতীক, মো. সাখাওয়াত হোসেন বাহার-বীরপ্রতীক, আবু সাঈদ,
আনোয়ার হোসেন, ডালিয়া আহমেদ এবং জুলিয়া আহমেদ।
পৃষ্ঠা :১৫-২৩

রহিমা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম সেক্টর কমান্ডার-১ ও বীরউত্তম
পৃষ্ঠা :২৮-২৯

হাকিমুন্নেছা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : মেজর এটিএম হায়দার সেক্টর কমান্ডার-২ ও বীরউত্তম
ক্যাপ্টেন ডা. সিতারা বেগম বীরপ্রতীক
ও মুক্তিযোদ্ধা এটিএম সাফদার
পৃষ্ঠা :৩০-৪১

লতিফা সিদ্দিকী
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : বঙ্গবীর আবদুল কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম,
আবদুল লতিফ সিদ্দিকী
পৃষ্ঠা :৪২-৫৫

হাসিনা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : ডা. জাফরুল্লাহ্ চৌধুরী,
শহীদুল্লাহ্ চৌধুরী ও ইকরামুল্লাহ্ চৌধুরী
পৃষ্ঠা :৫৬-৬৩

সেলিনা বানু
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শিরীন বানু মিতিল এবং সারাহ বানু সুচি
পৃষ্ঠা :৬৪-৭১

রওশন আরা বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : বদিউল আলম বীরবিμম
পৃষ্ঠা :৭২-৭৯

যোগমায়া দাশ
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শিবনারায়ণ দাশ
পৃষ্ঠা :৮০-৮৫

মুকিদুননেছা
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ
পৃষ্ঠা :৮৬-৮৯

সাখিনা ইসাহাক
সন্তান শহীদ : শেখ সুলতান উদ্দিন ও শেখ আবদুর রউফ
পৃষ্ঠা :৯০-৯২

কানিজ ফাতেমা মোহসিনা
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : হায়দার আকবর খান রনো
এবং হায়দার আনোয়ার খান জুনো
পৃষ্ঠা : ৯৩-৯৯

রোকেয়া খাতুন
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : মোকাররম হোসেন, মনসুর হোসেন,
মোস্তাক হোসেন এবং মোশাররফ হোসেন
পৃষ্ঠা :১০০-১০৩

জাহানারা ইমাম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : শফি ইমাম রুমী
পৃষ্ঠা :১০৪-১১৩

জেবুন্নেসা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শাজাহান মোহাম্মদ শফিউল্লাহ্ শানু
পৃষ্ঠা : ১১৪-১২০

বেগম সুফিয়া কামাল
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : সাঈদা কামাল ও সুলতানা কামাল
পৃষ্ঠা :১২১-১২৯

মোসাম্মৎ রউফুন্নেসা
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শেখ কামরুজ্জামান টুকু
পৃষ্ঠা :১৩০-১৩৬

ফাতেমা আলম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : হাবিবুল আলম বীরপ্রতীক, মুক্তিযোদ্ধা আসমা ও রেশমা
পৃষ্ঠা :১৩৭-১৪৪

ছখিনা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : হেমায়েত উদ্দিন বীরবিক্রম,
শামসুল হক, মোহাম্মদ নজির হোসেন এবং মোমেলা
পৃষ্ঠা :১৪৫-১৫৩

সন্ধ্যা কর
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : গীতা কর, ইরা কর ও ভক্তি কর
পৃষ্ঠা :১৫৪-১৫৯

সখিনা খাতুন
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : জিন্দার আলী ও সিদ্দিকুর রহমান
পৃষ্ঠা :১৬০-১৬২

সাফিয়া বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : মাগফার আহমেদ চৌধুরী আজাদ
পৃষ্ঠা :১৬৩-১৬৭

অভিরুননেছা বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : শহীদ আইয়ুব আলী গাজী,
মুছা গাজী ও রহমত উল্লাহ (দাদু) বীরপ্রতীক
পৃষ্ঠা :১৬৮-১৭৩

আছিয়া বেওয়া
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শহীদ লুৎফর রহমান
পৃষ্ঠা :১৭৪-১৭৬

রাইসা খাতুন
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : রাইসুল ইসলাম আসাদ
পৃষ্ঠা :১৭৭-১৮২

তীর্থবাসিনী শিকদার
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : অধীর শিকদার
পৃষ্ঠা :১৮৩-১৮৬

হামিদা খাতুন
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : হামিদুর রহমান মধু
পৃষ্ঠা :১৮৭-১৯০

কাজী নুরুন্নাাহার বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : কাজী সাজ্জাদ আলী জহির বীরপ্রতীক
ও কাজী হেলাল
পৃষ্ঠা :১৯১-১৯৫

ফুলজান বেওয়া
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবদুস সামাদ
পৃষ্ঠা :১৯৬-১৯৯

বেগম আনোয়ারা রহমান
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : ডা. লায়লা পারভীন বানু
পৃষ্ঠা :২০০-২০৬

মজবুল নেসা
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবদুল জব্বার
পৃষ্ঠা :২০৭-২১০

মাজেদা বেগম
সন্তান : মেজর কামরুল হাসান ভূঁইয়া বীরপ্রতীক
পৃষ্ঠা :২১১-২১৬

রওশন হাসিনা
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : ফেরদৌসী প্রিয়ভাষিণী
পৃষ্ঠা :২১৭-২২২

সালেমা বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : লেফটেন্যান্ট সেলিম মোহাম্মদ কামরুল হাসান
পৃষ্ঠা :২২৩-২২৬

সালেহা খানম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : মাহফুজা খানম
পৃষ্ঠা :২২৭-২৩১

সবুরা বিবি
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবদুল মালেক
পৃষ্ঠা :২৩২-২৩৪

কাঞ্চন বানু
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আনোয়ার হোসেন খান
পৃষ্ঠা :২৩৫-২৩৯

মোছা. তছলিমা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : মিজানুর রহমান
পৃষ্ঠা :২৪০-২৪৪

সুলতানা রাজিয়া দীন
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আলী আহমেদ জিয়াউদ্দীন বীরপ্রতীক
পৃষ্ঠা :২৪৫-২৪৯

ফাতেমা বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবদুর রহমান
পৃষ্ঠা :২৫০-২৫৩

আমিরা বানু বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শেখ আব্দুল কাইয়ুম
পৃষ্ঠা :২৫৪-২৫৯

বেগম রিজিয়া বিশ্বাস
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : বিশ্বাস আবদুল কুদ্দুস মাহমুদ
পৃষ্ঠা :২৬০-২৬২

শামসুন নাহার
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শাহীন সামাদ
পৃষ্ঠা :২৬৩-২৬৭

মালেকা বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল
পৃষ্ঠা :২৬৮-২৭২

শহর বানু
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আলম তালুকদার
পৃষ্ঠা :২৭৩-২৭৮

আবেদা খাতুন
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবুল কাসেম শিকদার
পৃষ্ঠা :২৮৯-২৮১

লিনা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আবুল বারক আলভী
পৃষ্ঠা :২৮২-২৯১

জহুরা খাতুন
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : জহুরুল আলম বিজলী
পৃষ্ঠা :২৯২-২৯৫

সৈয়দা বদরুন্নেসা
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : রোকেয়া কবীর
পৃষ্ঠা :২৯৬-৩০৫

কাজী বারিরা শহীদ
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : কাজী রোজী
পৃষ্ঠা :৩০৬-৩১১

মোসাম্মৎ ছৈয়াদুন্নেছা
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আশরাফ হোসেন খান
পৃষ্ঠা: ৩১২-৩১৪

সিতারা আহমেদ
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : মোজাফফর উদ্দিন মানিক
পৃষ্ঠা :৩১৫-৩১৭

চারুবালা বাড়ৈ
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : অধীর চন্দ্র বাড়ৈ
পৃষ্ঠা :৩১৮-৩২০

সরলাময়ী বৈদ্য
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আশালতা বৈদ্য, ঊষালতা বৈদ্য, স্বর্ণলতা বৈদ্য ও হরগোবিন্দ বৈদ্য
পৃষ্ঠা :৩২১-৩২৭

মাহমুদা খানম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : ওমর ফারুক
পৃষ্ঠা :৩২৮-৩৩১

জমাতুন নেসা খানম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আয়শা খানম
পৃষ্ঠা :৩৩২-৩৩৬

ফরাশী বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : শামছুল হক
পৃষ্ঠা :৩৩৭-৩৪০

জোবাইদা খাতুন
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : এম সামসুর রহমান
পৃষ্ঠা :৩৪১-৩৪৪

আম্বিয়া খাতুন
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবদুর রাজ্জাক
পৃষ্ঠা :৩৪৯-৩৫২

ইফফাত আরা
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল ও টুটুল
পৃষ্ঠা :৩৪৯-৩৫২

ডরথী পেরেইরা
শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : বাবলু গডফ্রে পেরেইরা
পৃষ্ঠা :৩৫৩-৩৫৫

দীপালি সমাজদার
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : শংকু সমাজদার
পৃষ্ঠা :৩৫৬-৩৫৯

শ্রীমতী বাণী ভাদুড়ী
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : রণজিৎ ভাদুড়ী
পৃষ্ঠা :৩৬০-৩৬৪

শফিকুন্নেছা খাতুন
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবদুল মুকিত
পৃষ্ঠা :৩৬৫-৩৬৭

কুলসুম বেগম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : ওমর ফারুক
পৃষ্ঠা :৩৬৮-৩৭০

ননী বেওয়া
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : আবুল কালাম আজাদ
পৃষ্ঠা :৩৭১-৩৭৩

সুচিত্রা সোম
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : সমীর সোম
পৃষ্ঠা :৩৭৪-৩৭৭

মাজেদা খাতুন
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : আ স ম আবদুর রব
পৃষ্ঠা :৩৭৮-৩৮৭

শংকরী হালদার
সন্তান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা : সুভাষ হালদার ও শহীদ সুরেশ হালদার
পৃষ্ঠা :৩৮৮-৩৯০

মেইলি বিবি
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : কাঁকন বিবি (কাঁকাত হেনিনচিতা) বীরপ্রতীক
পৃষ্ঠা :৩৯১-৩৯৬

জাহানারা বেগম
সন্তান মুক্তিযোদ্ধা : শাহাদাত চৌধুরী, ফতেহ আলী চৌধুরী ও ডা. মোরশেদ চৌধুরী
পৃষ্ঠা :৩৯৭-৪০৪

পরিশিষ্ট
সংযুক্তি : ১
মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস
পৃষ্ঠা :৪০৭-৪১৪

সংযুক্তি : ২
মুক্তিবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধা
পৃষ্ঠা :৪১৫-৪১৮

সংযুক্তি : ৩
মুক্তিযোদ্ধাদের শপথ (২নং সেক্টর)
পৃষ্ঠা :৪১৯-৪২০

সংযুক্তি : ৪
মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গন (সেক্টর)
পৃষ্ঠা :৪২১-৪৩০

সংযুক্তি : ৫
প্রশ্নপত্র : মুক্তিযোদ্ধার মা এবং মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রশ্ন
পৃষ্ঠা :৪৩১-৪৩৫
তথ্যপঞ্জি
পৃষ্ঠা :৪৩৭-৪৩৮

তথ্যসূত্র
পৃষ্ঠা :৪৩৯-৪৪০