Home / সবিশেষ / ফয়জুল হাকিম-এর একগুচ্ছ কবিতা

ফয়জুল হাকিম-এর একগুচ্ছ কবিতা

ফয়জুল হাকিম-এর একগুচ্ছ কবিতা

 

বেওয়ারিশ

কেউ তার নাম বলতে পারেনি, বাড়ি কোথায়
কি বিষয়-আশয় কেউ তা জানে না
নিস্তব্ধ এক মৃতদেহ হয়ে তার এই পড়ে থাকা।
প্লাটফর্মে ট্রেনের যাওয়া-আসা, যাত্রী সাধারণ ওঠানামা
হকারের চিৎকার
তিনি নির্বিকার প্লাস্টিক পেপারে মোড়া
শুয়ে থাকা এক জীবন,
এখন বেওয়ারিশ লাশ!

হেঁটে যেতে যেতে যাত্রি কি পথচারী
ভবঘুরে কি ভদ্রলোক উকি মারে সকলে
কৌতুহলে জিগ্যেস করে ‘ট্রেনে কাটা?’ সময়ের সাথে
চলে সমাজের বোঝাপড়া।
বিকেল গড়িয়ে রাত বাড়ি ফেরে
বাতাসে লাশের পচা গন্ধ ছড়িয়ে ভন ভন করে
উড়ে মাছি, কেউ এসে প্লাস্টিকের বাঁধন খুলে
মুখ দেখে, দেখে প্রিয়জন পরিচিতজন কিনা, কেউ এসে
মোমবাতি জ্বেলে জানায় বিদায় ঘোষণা!
কেউ জানে না তাকে, চেনে না-তবু প্রতীক্ষায় থাকে
রেলস্টেশন প্লাটফর্ম অন্ধকার ট্রেনের হুইসল!

২১.০১.২০১৮
ঢাকা

 

তোমার রক্তস্রোত এখন হৃদপিণ্ড হয়ে সারাদেশে
(কমরেড মিঠুন চাকমা স্মরণে)

শেয়ালের গর্ত থেকে একে একে
বের হয়ে এসেছিল
ঘাতক দালালেরা,
ছায়ার দু’পায়ে ভর দিয়ে নিঃশব্দ যেন
ওৎ পেতেছিল
তোমার চারপাশ।
নিরস্ত্র নিমগ্ন তুমি
ছিলে বড় একা!

বাতাসের বুক চিড়ে সশব্দে ছুটে যাওয়া
ছয় ছয়টি তপ্ত বুলেট
তোমার বক্ষস্থল ভেদ করে উন্মুক্ত করেছিল
প্রবাহমান রক্তস্রোত ধারা,
কমরেড, তোমার রক্তস্রোত এখন সারাদেশে
হৃদপিণ্ড হয়ে শব্দ করে চলছে
লাবঢাব… লাবঢাব… লাবঢাব…

৭.০১.২০১৮
ঢাকা

একদিন বৃষ্টির বারান্দায়

বৃষ্টির বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকো
দেখবে রাস্তায় জল জমছে
জুরাইনের নোংরা আবর্জনা ফুলেফেপে হয়েছে
উন্নয়নের ব্রেকিং নিউজ!
ঢাকার নিচু ঘরগুলোতে ঢুকে পড়ছে পানি,
মায়েরা বাচ্চাদের সামলাতে ব্যস্ত
বর্ষাতি গায়ে এক রিক্সাচালক আয়েসে
ধরাবে সিগ্রেট,
ক’জন দিনমজুর আজ কাজ হারাবে কে বলবে…
ধুলো ধুয়ে সবুজপাতা মেলে দাঁড়াবে এ শহরের
কয়েকটি গাছ,
র‌্যাডিসনের সুইমিংপুলে সাতার কেটে ঠাণ্ডা বীয়ারে
ঠোট রাখবে বিদেশীনি, বলবে ‘অপূর্ব!’
বাজেট ঘোষণার আগে অর্থমন্ত্রী হুশিয়ারি দিয়ে বাড়াবে
আরেক দফা বিদ্যুতের দাম,
প্রধানমন্ত্রীর স্মিত হাসিতে ঢাকা পড়বে কারাগারে আটক
রাজবন্দীদের মুখ,
গুম হয়ে যাওয়া ছেলেদের মায়ের কান্না…

বৃষ্টির বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকো দেখবে
একসময় বৃষ্টি থামবে, যানজট খুলে যাবে
বস্তির বাচ্চারা খেলতে বের হবে, আমাদের চুলোতে
হাড়ি চড়বে
গরম ভাতের গন্ধে ক্ষুধা বাড়বে আর
জনারণ্যে ভেসে যাবে স্বৈরশাসকের সব দাবার ঘুটি
সূর্য এসে মুখ বাড়িয়ে করবে স্বাধীনতা ঘোষণা…

১০ মে ২০১৮
ঢাকা

 

কার্ল মার্কসের জন্মদ্বিশত বার্ষিকী মনে রেখে

দার্শনিকেরা যখন জগৎকে ব্যাখ্যা করে চলেন অবিরাম
আমরা তখোন কার্ল মার্কসের জানালায় দাঁড়াই
দেখি পরিবর্তন কতোটা জরুরি, কতোটা জরুরি শ্রেণী বৈষম্য বিলোপ
বিলোপ জাত-পাত আশরাফ-আতরাফ, বিলোপ ব্যক্তি মালিকানা,
পুঁজির শাসন।

মার্কসের জানালায় দাঁড়িয়ে যে দেখে আকাশ
সে তেমনই দেখে পথঘাট কারখানা চিমনি উঁচু ভবন
মানুষে মানুষে সম্পর্ক পণ্য বাজার উদ্বৃত্তমূল্যের সমাহার।
দেখে সমাজের পথচলা, গতি-এইভাবে সবকিছুর ভেতরকার বিরোধ
রৌদ্র আর জ্যোৎস্নার আলিঙ্গন!

মার্কসের জানালায় তুমি দাঁড়াও- দেখবে ইতিহাস সৃষ্টি
কোন বীরের কাজ নয়,
নয় অলৌকিক শক্তি, চেতনা নয়-
জনগণই নির্মাতা ইতিহাসের।
তুমি কি দাঁড়াবে একবার মার্কসের জানালায়…

৪ঠা মে ২০১৮
ঢাকা

 

বোধ

লাশগুলো পড়ে আছে হাইওয়ের পাশে
একে একে কাটা হচ্ছে তাদের হাত পা মাথা,
কোন পোস্টমর্টেম নয়, স্রেফ বাজারে বিকাবে বলে
করাতকলের মতো দাঁত বের করে হাসে বেনিয়া ব্যবসায়ী!

কর্পোরেট যুগে মানুষের বোধগুলো যে আজ লাশ হয়ে
পড়ে আছে বার-এ ও বারান্দায়!
সমাধিস্থ হবে না হিমাগারে থেকে যাবে, হবে
বেচাকেনা এই নিয়ে জেগে থাকে ইনটেলেকচুয়াল আকাশ!

শেকড়ে মাথা গুঁজে মেলে দাও তোমার ডাল পালা পাতা
বৃষ্টি হবে, মেঘের রাগতস্বর শোনা যাবে, রৌদ্র হেসে ধরবে
তোমার দু’হাত!

১৭.০৩.২০১৮
পাবনা