Home / সবিশেষ / রফিক আজাদ : ভুল সময়ের এক ক্ষুধার্ত কবি

রফিক আজাদ : ভুল সময়ের এক ক্ষুধার্ত কবি

Poet-Rafiq-Azadরফিক আজাদ

বইনিউজের শ্রদ্ধাঞ্জলি

প্রথম সন্তানের মৃত্যু মানসিকভাবে একেবারেই ভেঙে দিয়েছিল সলিম উদ্দিন খান ও রাবেয়া খানকে। পরিবাররে বড় ছেলেটিকে হারিয়ে বাবা-মা যখন শোকে পাথর, তখনও আশায় বুক বেঁধেছিলেন ছোট মেয়ে খুকিকে নিয়ে। কিন্তু সেই সুখও সইলো না কপালে। তৃতীয় সন্তান যখন গর্ভে তখনই মারা যায় খুকি। দ্বিতীয়বারের মতো আদরের সন্তান হারিয়ে এবার মাথা একেবারে খারাপ হওয়ার যোগাড় খান পরিবারের। আশঙ্কা ছিল প্রথম দুই সন্তানের মতো এবারের সন্তানটিকেও হয়তো বাঁচানো যাবে না, কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে সেই ছেলেটি দিব্যি বেঁচে রইলো। এক জীবনে পার করে ফেললো তিন তিনটি দেশের নাগরিকত্ব। খুকি মারা যাওয়ার আগেই ছোটভাইয়ের নাম রেখেছিল ‘জীবন’। খুকির সেই নামকে সার্থক করে বেঁচে থাকা সেদিনের সেই ছোট্ট শিশুটিই রফিক আজাদ।
সমাজ বদলের জন্য যেই হাতে কলম ধরেছিলেন সেই হাতেই অস্ত্র নিয়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন। কবিতা লিখেছেন, সম্পাদনা করেছেন সাহিত্য পত্রিকা। করেছেন শিক্ষকতাও। বাংলা একাডেমি থেকে ১৯৭২ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত মাসিক সাহিত্য পত্রিকা ‘উত্তরাধিকার’ এর সম্পাদক ছিলেন। নাম উহ্য রেখে সম্পাদনার কাজ করেছেন রোববার পত্রিকাতেও। এছাড়াও ‘ঘরে বাইরে’ নামের একটি মাসিক সাহিত্য পত্রিকারও তিনি সম্পাদক ছিলেন। এছাড়াও শিক্ষকতা করেছেন টাঙ্গাইলের মওলানা মুহম্মদ আলী কলেজের বাংলার প্রভাষক হিসেবে।
ষাটের দশকের অন্যতম প্রধান এই কবি এক ধরনের স্বপ্নাচ্ছন্ন অনুভূতিলোক সৃষ্টির আকাঙ্ক্ষা নিয়ে একাধারে লিখে গেছেন বহু কবিতা। তার মধ্যে ভাত দে হারামজাদা, বালক ভুল করে পড়েছে ভুল বই, যাও পত্রদূত, চুনিয়া আমার আর্কেডিয়া, যদি ভালোবাসা পাই, নগর ধ্বংসের আগে, নত হও, কুর্নিশ করো ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।
কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮১); হুমায়ুন কবির স্মৃতি (লেখক শিবির) পুরস্কার (১৯৭৭); আলাওল পুরস্কার (১৯৮১); কবিতালাপ পুরস্কার (১৯৭৯); ব্যাংক পুরস্কার (১৯৮২); সুহৃদ সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৯); কবি আহসান হাবীব পুরস্কার (১৯৯১); কবি হাসান হাফিজুর রহমান পুরস্কার (১৯৯৬); বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা (১৯৯৭)। ২০১৩ সালে পেয়েছেন একুশে পদকও।
যতখানি যত্ন করে কবিতা লিখতেন তার সিকিভাগ যত্নও নিতেন না শরীরের প্রতি। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণে এবছরের জানুয়ারির ১৫ তারিখে হাসপাতালে ভর্তি হন কবি রফিক আজাদ। দীর্ঘ ৫৮ দিন সেখানে লাইফ সাপোর্টে থাকার পর আজ বেলা দু’টার দিকে জীবনাবসান ঘটে ‘জীবন’ নামের এই কবির। বইনিউজের পক্ষ থেকে কবি রফিক আজাদের প্রতি রইলো শ্রদ্ধাঞ্জলি।