Home / খবর / নদী বিষয়ক প্রকাশনার পরিধি আরও বাড়ানো দরকার।

নদী বিষয়ক প্রকাশনার পরিধি আরও বাড়ানো দরকার।

নদী বিষয়ক প্রকাশনার পরিধি আরও বাড়ানো দরকার।

বইমেলার উদ্বোধন করে ফারাহ্ কবির বলেন, নদী বিষয়ক প্রকাশনার পরিধি আরও বাড়ানো দরকার। আমাদের দেশে নদী বিষয়ক যেসব প্রকাশনা রয়েছে, তার বেশিরভাগই হয় পাঠ্যক্রমমূলক না হয় সাহিত্যমূলক। এই দুইয়ের মাঝখানে বিপুল পাঠক রয়েছেন যারা নদী নিয়ে সহজভাষায় তথ্য ও অভিজ্ঞতামূলক বই পড়তে চায়। প্রকাশকদের এগিয়ে আসতে হবে এ ধরনের বই প্রকাশে। তিনি বলেন, প্রযুক্তির এই যুগে শিশুদের জন্য ‘ইন্টারেকটিভ’ বই প্রকাশ করতে হবে। তাহলে তারা বই পড়তে আগ্রহী হবে ও নদী সম্পর্কে জানবে। তাদের মধ্য থেকে ভবিষ্যৎ নদীকর্মী তৈরি হবে। আজ দুপুরে পাঠক সমাবেশ কেন্দ্রে আয়োজিত এই মেলার উদ্বোধন করেন অ্যাকশনএইড কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ্ কবির।

বিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে শুক্রবার রাজধানীর শাহবাগে তিন দিনব্যাপী নদী বিষয়ক বইমেলা ও প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। প্রকাশনা সংস্থা শ্রাবণ প্রকাশনী, নদী বিষয়ক উদ্যোগ রিভারাইন পিপল ও বইনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম যৌথভাবে এর আয়োজক।

শুক্রবার সকালে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শ্রাবণ প্রকাশনীর সত্বাধিকারী রবীন আহসান ও রিভারাইন পিপলের মহাসচিব শেখ রোকন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রিভারাইন পিপলের পরিচালক নূসরাত খান। মেলা ও প্রদর্শনীতে বাজারে সুলভ বই বিক্রয় ছাড়াও দুষ্পাপ্য নদী বিষয়ক গ্রন্থাবলী প্রদর্শিত হচ্ছে। আগামী রোববার পর্যন্ত সকাল থেকে সন্ধ্যাবেলা এই মেলা চলবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।

রবীন আহসান বলেন, দেশে নদী বিষয়ে মানসম্মত বইয়ের চাহিদা রয়েছে, প্রকাশকদেরও আগ্রহ রয়েছে। কিন্তু নদী বিষয়ক বইয়ের লেখকের অভাব রয়েছে। তিনি বলেন, শ্রাবণ প্রকাশনী থেকে নদী বিষয়ে যেসব বই প্রকাশ করা হয়, তার কোনটিই অবিক্রিত থাকে না। নদী বিশেষজ্ঞরা সহজ ভাষায় সাধারণ পাঠকের উপযোগী বই লিখলে, বাজারে তা ব্যাপক চলবে।

শেখ রোকন বলেন, রিভারাইন পিপল নদীবিষয়ে যে জ্ঞানভিত্তিক আন্দোলন গড়ে তুলতে চায়, তারই অংশ হিসেবে যৌথভাবে তৃতীয়বারের মতো নদী বিষয়ক বইমেলা আয়োজন করেছে। প্রজন্মান্তরের মধ্যে নদী বিষয়ক জ্ঞান বিনিময় করতে প্রকাশনা খুবই কার্যকর মাধ্যম। বাংলাদেশের নদ-নদী যে বহুমাত্রিক সংকটের মধ্যে রয়েছে, তা মোকাবেলায়ও গড়ে তুলতে হবে বহুমাত্রিক আন্দোলন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিআইডবিøউটিএ’র সাবেক প্রকৌশলী তোফায়েল আহমেদ, বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলনের সদস্য সচিব মিহির বিশ্বাস, হাওর অঞ্চলবাসীর সমন্বয়ক জাকিয়া শিশির, নোঙর’র চেয়ারম্যান সুমন শামস, রিভারাইন পিপলের পরিচালক মোহাম্মদ এজাজ, নদীযাত্রিকের আহবায়ক ফারুখ আহমেদ প্রমূখ।