Home / বই আলোচনা / গণসঙ্গীতের ভুবনে অন্যরকম সুর-সাইফ বরকতুল্লাহ

গণসঙ্গীতের ভুবনে অন্যরকম সুর-সাইফ বরকতুল্লাহ

Dipongker-Goutam

গণসঙ্গীতের ভুবনে অন্যরকম সুর-সাইফ বরকতুল্লাহ

গণসঙ্গিত সংগ্রহ
সংগ্রহ-সম্পাদনা
দীপংকর গৌতম
প্রকাশক : শ্রাবণ প্রকাশনী
১৩২ আজিজ সুপার মার্কেট (২য় তলা) শাহবাগ, ঢাকা। ফোন ০১৭১৫৭৫১১১৭
মূল্য: ৭০০ টাকা

গণমানুষের আশা জাগানিয়া প্রায় ৮০০ গানের একটি পূর্ণাঙ্গ সংগ্রহ, সংকলন ও সম্পাদনা মোটেই সহজসাধ্য ব্যাপার নয়। দীপংকর গৌতম এই কঠিন কাজটি সম্পন্ন করেছেন যথেষ্ট দক্ষতার সঙ্গে। বাংলা ভাষাভাষী মানুষ, বাংলা সাহিত্যে গণসঙ্গীত বিশেষভাবে সমৃদ্ধ ও সমাদৃত। গণসঙ্গীত মূলত রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক শোষণ ও নির্যাতন, অত্যাচার-অনাচারের বিরুদ্ধে মানুষকে উদ্দীপ্ত করার গান।

নির্যাতন, অসাম্য ও আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে বাঙালির দীর্ঘ প্রতিবাদী ইতিহাসের শুরু থেকেই গণসঙ্গীত ও দেশাত্মবোধক গান প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। অনুভূতি প্রকাশের ক্ষেত্রে এই মাধ্যমগুলো বাঙালি জাতিকে সব সময় সহায়তা করেছে। গণসঙ্গীত আমাদের জাতীয় জীবনের আন্দোলন-সংগ্রামে সব অপশক্তির বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে লড়াইয়ে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। সেই সব প্রেরণা দিনের গান দীর্ঘ প্রায় দশ বছর ধরে সংগ্রহ করে গ্রন্থাকারে সন্নিবেশিত করেছেন দীপংকর গৌতম।

বইটিতে রামনিধি গুপ্ত, দীনবন্ধু মিত্র, কালিপ্রসন্ন ঘোষ, কায়কোবাদ, দ্বিজেন্দ্রলাল রায়, কামিনী রায়, গৌরিপ্রসন্ন মজুমদার, খান আতাউর রহমান, আবদুল লতিফ, শহীদ সাবের, আবু হেনা মোস্তফা কামাল, আবদুল গাফফার চৌধুরী, গোবিন্দ হালদার, সিকান্দার আবু জাফর, হাসান হাফিজুর রহমান, হেমাঙ্গ বিশ্বাস, সলিল চৌধুরীসহ চল্লিশ দশকের গণনাট্য আন্দোলনের প্রায় সব গান রয়েছে।

বইটিতে শুধুমাত্র গীতিকারের নাম সন্নিবেশিত হয়েছে।সুরকারের নাম থাকলে নিঃসন্দেহে এটি আরো সমৃদ্ধ হতো। কিন্তু এটি মোটেই সহজসাধ্য নয়। ঝকঝকে ছাপা, চমৎকার বাইন্ডিং- সব মিলিয়ে বইটির প্রোডাকশন উন্নত। প্রচ্ছদও চমৎকার! যদিও প্রচ্ছদ এ সময়ের কোনো শিল্পীর আঁকা নয়। প্রকাশক রবীন আহসান প্রচ্ছদ করেছেন। গণসঙ্গীত সংগ্রহ প্রকাশ করেছে শ্রাবণ প্রকাশনী। দাম ৭০০ টাকা। পৃষ্ঠা সংখ্যা ৫০৪।

বর্তমানে গণসঙ্গীতের চর্চা, সংরক্ষণ খুব কমই পরিলক্ষিত হয়। বর্তমান শব্দনির্ভর গানের যুগে গণসঙ্গীতের চর্চা হারিয়ে যেতে বসেছে। ফলে দীপংকর গৌতমের সদ্য প্রকাশিত ‘গণসঙ্গীত সংগ্রহ’ একটি অনবদ্য প্রচেষ্টা।

বইটিতে স্থান পাওয়া উল্লেখযোগ্য কয়েকটি গানের কলি পাঠকদের জন্য তুলে ধরছি:
১। নানান্ দেশের নানান্ ভাষা/বিনা স্বদেশী ভাষা পূরে কি আশা [ গণসঙ্গীত সংগ্রহ, পৃষ্ঠা ৩৩] ২। মধুর চেয়েও আছে মধুর-/সে এই আমার দেশের মাটি [ গণসঙ্গীত সংগ্রহ, পৃষ্ঠা ৭৯] ৩। শোন, একটি মুজিবরের থেকে/লক্ষ মুজিবরের কণ্ঠ ধ্বনি প্রতিধ্বনি/আকাশে বাতাসে উঠে রণি/বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ [ গণসঙ্গীত সংগ্রহ, পৃষ্ঠা ৯৫],
৪। এক নদী রক্ত পেরিয়ে বাংলার আকাশে/রক্তিম সূর্য আনলে যারা [ গণসঙ্গীত সংগ্রহ, পৃষ্ঠা ১১৩],
৫। মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি [ গণসঙ্গীত সংগ্রহ, পৃষ্ঠা ১২২],
৬। জনতার সংগ্রাম চলবেই/আমাদের সংগ্রাম চলবেই [ গণসঙ্গীত সংগ্রহ, পৃষ্ঠা ১৫৪],

বইটির শুরুতে কয়েকটি নিবন্ধ দেওয়া হয়েছে। গণসঙ্গীত : দ্রোহের গান দ্রোহীর গান, স্বদেশী গানের জোয়ার, গণসঙ্গীত ও স্বাদেশিকতার প্রসঙ্গ, গণসঙ্গীত : সংগ্রামের আরেক নাম, গণসঙ্গীতের সন্ধানে- এ নিবন্ধগুলো গানের পাশাপাশি পাঠককে গণসঙ্গীতের ইতিহাস জানতে পারবে। এসব নিবন্ধে গণসঙ্গীত সম্পর্কে প্রাক ধারণা, গান নিয়ে সমসাময়িক প্রসঙ্গ, দেশ ও আন্দোলনের পটভূমি উঠে এসেছে। সম্পাদনাতেও প্রচুর পরিশ্রম, নিষ্ঠা এবং শিল্পবোধের পরিচয় আছে। বলা যায় গণসঙ্গীত সংগ্রহ- একটি সুদৃশ্য সুন্দর প্রকাশনা।

বইটির সংকলক ও সম্পাদক দীপংকর গৌতম দুঃখ করে বলেছেন, ‘হারিয়ে যাচ্ছে রাজনীতির সংস্কৃতি। হারিয়ে যাচ্ছে সঙ্গীতের সুস্থ পরিবেশ। রাজনীতিতে অস্ত্র, সংস্কৃতিতে নেশা আর সঙ্গীতে চিৎকার- এখন এই আমাদের বাঙালি সংস্কৃতি।’ তিনি আরো বলেন, ‘আজ আমাদের ধান নেই, পান নেই, মাছ নেই, গান নেই। নেই গণসংগ্রামও। তাহলে গণসঙ্গীত কীভাবে হবে? তবুও হতাশাই শেষ কথা নয়। মানুষ জাগবে ফের- এ পটভূমিতেই গ্রন্থটির রচনা।’

বইটি বাংলা ভাষায় গণসঙ্গীত চর্চার স্বতন্ত্র কাজ হিসেবে রয়ে যাবে। গণসঙ্গীত আন্দোলন যারা সংগঠিত করে কালজয়ী সুরের সংমিশ্রণে নতুন ধারার জন্ম দিতে চান তাদের জন্য এ গ্রন্থ সহায়ক ভূমিকা হিসেবে প্রণীত হবে। নতুন সম্ভাবনা সঞ্চারিত করে নতুন প্রজন্মকে। শুধু তাই নয়, বাংলা গণসঙ্গীতের ব্যাপক বহুমুখী প্রয়োগ ও প্রসারের জন্য গ্রন্থটি সংগ্রহ জরুরি বলে মনে করি।