Home / বই আলাপ / বঙ্গবন্ধুর বই নিয়ে কেন কৃচ্ছতা, কেন এই কৃত্রিম সঙ্কট?

বঙ্গবন্ধুর বই নিয়ে কেন কৃচ্ছতা, কেন এই কৃত্রিম সঙ্কট?

bongobondhuবঙ্গবন্ধুর বই নিয়ে কেন কৃচ্ছতা, কেন এই কৃত্রিম সঙ্কট?
প্রভাস আমিন

শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ‘কারাগারের রোজনামচা’ পড়ছি। এর আগে তাঁর লেখা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র সাথে মিলিয়ে পড়লে বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাস জানা যাবে। ধীরে ধীরে একটি জাতিকে স্বাধীনতার আকাঙ্খায় ঐক্যবদ্ধ করতে একজন ব্যক্তিকে কতটা ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে তার ইতিহাস রয়েছে বই দুটির পাতায় পাতায়। ‘কারাগারের রোজনামচা’র ভূমিকায় বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা লিখেছেন এই বইয়ের পান্ডুলিপি তৈরি করতে গিয়ে তাদের সবাইকে চোখের জলে ভাসতে হয়েছে। যিনি টাইপ করেছেন, তার চোখের জলে ভিজেছে কম্পিউটারের কি-বোর্ড। যারা পড়ছেন, তাদের চোখের জলে ভিজবে বইয়ের পাতা। যে দলই করুন, কেউ যদি বাংলাদেশের ইতিহাস জানতে চায়, তাকে অবশ্যই বই দুটি পড়তে হবে। ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ প্রকাশিত হয়েছিল ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড-ইউপিএল থেকে। আর ‘কারাগারের রোজনামচা’ প্রকাশিত হয়েছে বাংলা একাডেমি থেকে। ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’তে উঠে এসেছে একজন শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণকাল। আর ‘কারাগারের রোজনামচা’ যখন লিখছেন, তখন তিনি গোটা জাতির আশা-আকাঙ্খার কেন্দ্রে। সংখ্যাটা ঠিক জানি না, নিঃসন্দেহে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বাংলাদেশের সর্বাধিক বিক্রিত বই। সংখ্যাটা কয়েকলাখ হওয়ার কথা। ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র অভিজ্ঞতা থেকেই ‘কারাগারের রোজনামচা’ প্রকাশ করা উচিত ছিল। ইতিমধ্যে বইটি প্রকাশিত হয়েছে, প্রকাশনা উৎসবও হয়েছে। কিন্তু বইটি এখনও সহজলভ্য নয়। প্রথম মূদ্রণে মাত্র ১০ হাজার কপি ছাপা হয়েছে। বাংলা একাডেমিতে গেলে আপনি একটির বেশি বই কিনতে পারবেন না। আমি একজন লোক পাঠিয়েছিলাম তিন কপি কেনার জন্য। তাকে তিনবার লাইনে দাড়াতে হয়েছে। কাল খবর নিলাম, এখনও একবারে এক কপির বেশি বই আপনি পাবেন না। এমনকি বাংলা একাডেমির এজেন্টরাও চাহিদামত বই পাচ্ছেন না। বঙ্গবন্ধুর বই নিয়ে কেন কৃচ্ছতা, কেন এই কৃত্রিম সঙ্কট; জানি না। কিন্তু এটা বুঝি, এটা ঠিক হয়নি। বঙ্গবন্ধুর বইটি অন্তত এক লাখ কপি, নিদেনপক্ষে ৫০ হাজার কপি ছেপে বিক্রি শুরু করা উচিত ছিল। ইউপিএল বা অন্য যে কোনো পেশাদার প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দিলে তারা তাই করতো। কিন্তু বাংলা একাডেমির মত একটি প্রতিষ্ঠান কেন এমন করলো? একাডেমির মহাপরিচালক ড. শামসুজ্জামান খান নিজে এই বইয়ের পান্ডুলিপি তৈরি প্রক্রিয়ায় ছিলেন। তিনি তো নিশ্চয়ই জানেন, এই বইয়ের বিপুল চাহিদা হবে। আর বঙ্গবন্ধুর বই প্রকাশের জন্য অর্থসঙ্কট হওয়ার কথা নয়। বাংলাদেশের প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান থেকে যে কোনো লেখকের একশ কপি বই কিনতে চাইলে তারা বিশেষ কমিশনে বই আপনার বাসায় পৌছে দেবে। আর বঙ্গবন্ধুর বই আপনি এক কপির বেশি কিনতে পারবেন না! কী বিস্ময়কর। কেউ যদি ‘কারাগারের রোজনামচা’র একশ কপি কিনতে চায়, কোত্থেকে কিনবে? আমি অবিলম্বে বঙ্গবন্ধুর ‘কারাগারের রোজনামচা’ সবার জন্য সহজলভ্য করার দাবি জানাচ্ছি। বাংলা একাডেমির পক্ষে অনায়াসে এটা করা সম্ভব। তারপরও যদি তারা না পারেন অন্য কাউকে দায়িত্ব দেয়া হোক।