Home / বই আলাপ / মাঝে মাঝে অবসরে নিজের বই উলটে পালটে দেখি-মোশতাক আহমদ

মাঝে মাঝে অবসরে নিজের বই উলটে পালটে দেখি-মোশতাক আহমদ

405483_10150417066556784_13মাঝে মাঝে অবসরে নিজের বই উলটে পালটে দেখি-মোশতাক আহমদ

বইনিউজের আজকের কথামালায় কবি মোশতাক আহমদ

বইনিউজ : কতদিন ধরে বই পড়া? কত দিন ধরে লেখা?
মোশতাক আহমদ : ছোটবেলাথেকেইপড়া ও লেখা। প্রথম বই ‘নজরুল কাব্য সঞ্চয়ন’ আর নিজের প্রথম লেখা ‘ অভাবের লোক’।

বইনিউজ : সামনে বইমেলা। নতুন বই পাঠকরা পাবেন কি? আগামী কবিতা গ্রন্থ সম্পর্কে বলুন।
মোশতাক আহমদ : এবারের বইমেলা উপলক্ষে আমার দুটি বই প্রকাশিত হয়েছে, একটি কবিতার বই অন্যটি গদ্যের। কবিতার বই ‘বুক পকেটে পাথর কুচি’, প্রকাশ করেছে চৈতন্য। আর গদ্যের বই ‘তিন ভুবনের যাত্রী’, প্রকাশ করেছে এ লিটলবিট। গদ্যের বইটি কবি আবুল হাসান, লেখক শাহাদুজ্জামান আর নৃত্যশিল্পী বুলবুল চৌধুরীকে নিয়ে লেখা তিনটি গদ্যের সংকলন। কবিতার বইটি গত দু বছরে লেখা কবিতা থেকে সঙ্কলিত, তবে আমার অভ্যাস অনুযায়ী কিছু পুরনো অগ্রন্থিত কবিতা ও রেখেছি বইয়ের থিমের সাথে মিলিয়ে। বইতে চারটি থিমের কবিতা আছে- কবি ও কবিতা ( মুখো মুখি বসিবার), প্রেমের কবিতা ( দূরাগ তহুই সেল), পরিবেশ-প্রতিবেশ ( আজকাল চোখের চারপাশ) আর আত্মমগ্নতা ( উদ্বেল সেলফির মুখ); চারটি ভাগে ৭০ পৃষ্ঠার বইটি ভাগ করা হয়েছে।

বইনিউজ : নিজের বই ও লেখালেখিতে কতটা আনন্দ-বেদনা কাজ করে নিজের ভেতরে বিস্তারিত বলবেন কী?
মোশতাক আহমদ : লেখালিখি এক অদ্ভুত রসায়ন হিসেবে কাজ করে। আনন্দ আর বেদনার প্রশমন। মাঝে মাঝে অবসরে নিজের বই উলটে পালটে দেখি আর নিজেকেই ব্যবচ্ছেদ করতে থাকি- ‘সে বড় সুখের সময় নয়, সে বড় আনন্দের সময় নয়’।

বইনিউজ : বছর জুড়ে কেমন সব কবিতা লিখলেন?
মোশতাক আহমদ : এ বছর মৌলিক কবিতার চেয়ে কবিতা অনুবাদ করেছি বেশি- আপলিনের, রুমী, ল্যাটিন এমেরিকান কবিতা। নতুন কবিতা যা লিখেছি অধিকাংশই নতুন বইতে গ্রন্থিত করেছি। এ বছর আরো মিতভাষী হবার চেষ্টা করে ছিবলে মনে হয়। একটি কবিতা অংশবিশেষ পড়া যাকঃ
অন্যের গন্ডিতে ঢুকে বসে আছি

লক্ষণরেখার ওই পাড়ে থাকে নিজের জীবন-
আত্মকথা উড়িয়ে নেবে পুষ্পকরথ
কোন লেলিহান লঙ্কাকান্ডে!
লিখতে বসে ঢুকে যাই অপরাপর পাতায়।

এই পঞ্চবটী নিরিবিলি, মন্দ বায়ু-
সোনার হরিণ চড়ে বেড়াক, কে তাকায়!

ওপাড়ে অরণ্যভর্তি মোহ-
ছিমছাম উদ্যানে ঝুলছে বর্শাবেঁধা হৃদপিন্ড;
নীরবে থাকিস আত্মকথা (ও তুই)
নীরবে ঝরিস মাঘরজনীর বৃষ্টি!

বইনিউজ : সারা বছর কী কী বই পড়লেন? কেমন লাগলো? ভালোলাগাটা আমাদের সঙ্গে শেয়ার করলে জানতে পারব।
মোশতাক আহমদ : নানা ধরনের বই- কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ, স্মৃতিকথা পড়েছি। তরুণ কবিদের কবিতা তুলনামূলকভাবে বেশি পড়া হয়েছে। অনুবাদ করার জন্য প্রচুর বিদেশি কবিতা পড়েছি। বই পড়ার স্মৃতি নিয়ে ‘ বই পড়ার টুকরো স্মৃতি’ নামে বইনিউজটুয়েন্টিফোরডটকমের পাতায় ধারাবাহিকভাবে লিখছি। ভাল লাগা শেয়ার করার ছলে একটা বই নিয়ে আমার পাঠ প্রতিক্রিয়া উল্লেখ করি বরং।
স্বরূপ সুপান্থ বই করলেন অনেক পরে। এ বছর বইমেলা থেকে তার কাব্য ‘ জলকামানের বই’ হাতে পেয়ে যা লিখেছিলাম তা উদ্ধৃত করে শেষ করছিঃ
জলোচ্ছ্বাসের পরদিন সকালবেলা, সমুদ্ররাক্ষুসী তখন শান্ত হয়ে গেছে।
বাবার হাত ধরে কিশোরটি সেই মৃত সৈকতে যুঝতে শুরু করল অপার শান্ত জলের মুখোমুখি।
সমুদ্রের দিকে তাকিয়ে সেদিন সে কিছু কথা বলেছিল।
তরুণ কবির মুখ থেকে এই গল্প শুনছিলাম আর নিশ্চিত হয়েছিলাম এই তার কবি হয়ে উঠবার গল্প।
সমুদ্রকে সেদিন যা যা বলেছিল আর বলতে শুরু করেছিল তা একদিন মলাটবদ্ধ হবে তা অবশ্যম্ভাবী ছিল।
যে সমুদ্রের মধ্যে দৌড়াতে চেয়েছিল আশৈশব, বইমেলায় তাকে আমি উড়তে দেখছিলাম আর আমি তালই মেলাতে পারছিলাম না। এই উড়ানরহস্য বুঝতে হলে জলকামানের বইটা পড়ে দেখতে হবে আপনাকে।
মস্তকারণ্যে এক রোসাঙ্গের ঘোড়া সঙ্গী করে, তারপর তার পর্যটন বিস্তৃত হল লেমুঝিরি পাড়া , হাড্ডি কোম্পানির গলি হয়ে ফলমণ্ডি রোড, তারপর ওই যে দেখা যাচ্ছে জিইসির মোড়!
বইমেলার সীমিত আলাপে তাকে ধরাই যাচ্ছিল না।
কেননা আপাতচঞ্চল, ডানাঅলা কবিকে ধরা শক্ত। অথচ জলকামানের বই হল স্তিতধী বয়ানগুচ্ছ।
এবার তাকে ধরতে হবে!

বইনিউজ : আপনার কবিতা ওপর কোনও কবির প্রভাব থাকলে তা নিয়ে আপনার নিজের মধ্যে বোঝাপড়া বলুন।
মোশতাক আহমদ : আমার কবিতা শুরু হয়েছে শামসুর রাহমানের প্রভাব নিয়ে, লেখা লেখা খেলা খেলতাম কবির অনুসরনে অক্ষরবৃত্ত লিখে। এরপর আবুল হাসানের মায়াময়তা, রফিক আজাদের পৌরুষ, নির্মলেন্দু গুণের সোজাসাপ্টা কথনের মেজাজের প্রভাব পড়েছে। এক পর্যায়ে আমি হয়ত প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছি। সম্প্রতি শ্রীজাতের কবিতা পড়লাম। কবির মিল নিয়ে খেলাটা ভাল লাগে, মিল-অমিলের মিল। সম্ভবত তাঁর মিল দেয়ার খেলাটার প্রভাবও টের পাচ্ছি ইদানিং।
বইনিউজ : লেখালেখি নিয়ে আপনার চিন্তাটা জানাবেন? কীভাবে, কেমন লিখতে চান?
খুব বেশি চিন্তা করে লিখি না। নিজের অভিজ্ঞতার বাইরে তো আর আসা যায় না, তবে অভিজ্ঞতা শব্দটা ব্যাপক- কখনও নিজের জীবন, কখনও অন্যের জ্ঞ্যাত জীবন, কখনওবা অধীত বিদ্যা- সবই একজন লেখকের অভিজ্ঞতার অংশ।

বইনিউজ : বই পড়া ও কবিতা লেখা নিয়ে পাঠক ও নতুন প্রজন্মের কবিদের প্রতি আপনারকোন পরামর্শ?
মোশতাক আহমদ : কাউকে পরামর্শ দেয়ার মত অবস্থানে আমি আসিনি। তবে ভাল বই পড়া, ভাল কবিতা পড়ার বিকল্প নেই।

বইনিউজ : বইমেলা, বই প্রকাশ, প্রকাশ মাধ্যম ইত্যাদি নিয়ে আপনার কোন কথা বলার থাকলে জানতে আগ্রহী।
মোশতাক আহমদ : পিছন থেকে আসি বরং। প্রকাশ মাধ্যম হিসেবে অনলাইন প্রকাশনা এসে গেছে সরবে। কিন্তু এখনও হাতে বই নিয়ে না পড়লে পড়ার আনন্দটা পায়ী না। অনলাইনে কিংবা কোমল ভার্সনে এ পর্যন্ত আমি আস্ত কোনো একটা বই পড়ে শেষ করতে পারিনি। সুতরাং আমার কাছে ছাপা বইই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতি বছর অনেক অনেক বই ছাপা হয়। আমি জানি না সব বইই কী প্রকাশের যোগ্য কীনা।